সম্প্রতি জন্মদিন গেছে টলিউডের সুন্দরী নায়িকাদের মধ্যে অন্যতম, “বং ক্রাশ” ঋতাভরী চক্রবর্তীর (Ritabhari Chakraborty)।

জন্মদিন উপলক্ষে ছেলেবেলার কিভাবে জন্মদিন পালন করা হতো সেই গল্পই সংবাদমাধ্যমে শেয়ার করলেন অভিনেত্রী।

ছেলেবেলা থেকেই জন্মদিন মনে তার কাছে এক রাশ আনন্দ।

কিন্তু খুব নিছিন্তের ছেলেবেলা ছিল না তার খুব অল্প বয়সেই দেখেছেন মা – বাবার বিচ্ছেদ ।

অনেক কষ্ট হলেও মা হিসেবে কোনোদিন বুঝতে দেননি তাদের, কষ্ট করে হলেও ঋতাভরী Ritabhari Chakraborty) ও তার দিদির জন্মদিন পালন করতেন তাদের মা।

জাকজমোক নয় বেশ অল্পের মধ্যেই অপরূপ ভাবে দিনটাকে সাজিয়ে তুলতেন তিনি।

তখন এত জামাকাপড় কেনার বাহার না থাকায় জামার কাপড় কিনে তা সেলাই করেই নিজের হাতে তৈরি করতেন মেয়েদের জামাকাপড়।

মা হলেন অন্যতম কারণ যার জন্য আজও অভিনেত্রী জন্মদিন পালন করেন।

ছোটবেলায় শুধু নিজের মেয়েদের জন্য না, বাকি নিমন্ত্রিত সন খুদেদের জন্য উপহার তৈরি করতেন তিনি।

সময় পাল্টালেও আজও সেই একই রীতি ধরে রেখেছে চক্রবর্তী পরিবার।

অভিনেত্রী মতে শুধু তাই নয় বেশ কিছু খুদেরাও তালিকায় আছে যারা ভালোবেসে ঋতাভরীকে (Ritabhari Chakraborty) জন্মদিন নিজের হাতের তৈরি উপহার দেয়।

এই খুদেরা তার অত্যন্ত কাছের এবং ভালোবাসার। এখন তার জন্মদিন মানেই নানা বন্ধুবান্ধব এবং আত্মীয় স্বজনদের সমাগম।

সীমা – পরিসীমা, দেশ – বিদেশ ব্যাস্ত জীবন ছেড়ে সবার এই সমাগম আনন্দের মাত্রা টাকে আরও বাড়িয়ে তোলে তার কাছে।

আজ পর্যন্ত অভিনেত্রী দিদি অর্থাৎ তিতিন ( চিত্রাঙ্গদা ) তার একটিও জন্মদিনে অনুপস্থিত থাকেনি। সবমিলিয়ে যেনো মনে হয় বিয়েবাড়ি লেগেছে।

এ ছাড়া আকর্ষনীয় বিষয় হল জন্মদিনের থিম, এবারের থিম ছিল “নাইনটিজ কিড”।

শোনা যাবে নব্বই দশকের বিভিন্ন গান কিন্তু সবশেষে শোনা যাবে “সাত সমন্দর”।

এটি অভিনেত্রীর প্রিয় গান তার প্রতি বছর জন্মদিনের অন্তিম পর্যায়ে শোনা যায় এই গানটি।

রীতি অনুযায়ী সবার জন্য উপহারের ব্যাবস্থা, এছাড়া অভিনেত্রীর প্রিয় মিনিয়েচর, এইরকম নজরকাড়া দিক দেখা যায় তার জন্মদিনে।

অভিনেত্রী বলেন, “জন্মদিনে আমি কী উপহার পাব, জানি না কিন্তু!

শুনেছি তথাগত কিছু একটা তৈরি করছে আমার জন্য। সেটা যে কী, তা-ও জানি না।”

খবর মেনুতে সবচে উল্লেখ্য ছিল মটন।

জীবনের পরবর্তী বছরগুলিতেও অভিনেত্রী এই দিনটি এভাবে কাটাতে চান প্রিয়জনদের পাশে নিয়ে, তাদের দেওয়া উপহার কে গুছিয়ে রাখতে চান মনের মণিকোঠায়।

হাসি, মজা , আনন্দের মধ্যে দিয়ে যাক এই বিশেষ দিনটি।
অভিনেত্রী মতে, “বয়স যতই বাড়ুক, বুড়ি হওয়ার দিকে

যতই এগোই, মনে আমি সেই খুকিই রয়ে গেলাম। আমার বোধহয় আর বড় হওয়া হল না!”

আরো পড়ুন: Esha Gupta: বলিউডের নেপটিজম নিয়ে মুখ খুললেন এবার অভিনেত্রী এষা গুপ্তা

Image source-Google