অন্তর্বর্তীকালীন সভানেত্রী সনিয়া গান্ধী।

নিউজপোল ডেস্ক: আর সভানেত্রী থাকতে ইচ্ছুক নন অন্তর্বর্তীকালীন সভানেত্রী সনিয়া গান্ধী। ২৩ জন শীর্ষ নেতার চিঠির জবাবে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন সনিয়া গান্ধী বলে সূত্রের খবর। সোমবার কংগ্রেস ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠকে তিনি পদ থেকে সরে দাঁড়াতে পারেন বলেও সূত্রের খবর। তবে সেই খবরের সত্যতা অস্বীকার করেছে কংগ্রেসের শীর্ষ নেতৃত্ব। দলে সংস্কার ও পূর্ণ সময়ের নেতৃত্বের দাবি জানিয়ে অন্তর্বর্তীকালীন সভানেত্রী সনিয়া গান্ধীকে চিঠি লিখেছিলেন কংগ্রেসের শীর্ষ নেতারা। তারই উত্তরে সনিয়া শীর্ষ নেতাদের বলেছেন, তাঁরা যেন সবাই মিলে একজন নতুন প্রধান খুঁজে নেন।

আরও পড়ুন: সোমবার CWC-র বৈঠক, পূর্ণ সময়ের নেতার দাবি জানিয়ে সনিয়াকে চিঠি ২৩ শীর্ষ নেতার

চলতি সপ্তাহের শুরুর দিকে কংগ্রেসে অভ্যন্তরে আমূল সংস্কারের দাবি জানান দলের শীর্ষ ২৩ নেতা। এই মর্মে তাঁরা দলের অন্তর্বর্তীকালীন সভানেত্রী সনিয়া গান্ধীকে একটি চিঠিও লেখেন। সেই চিঠিতে দলের নানা সংকটময় পরিস্থিতি তুলে ধরার পাশাপাশি পূর্ণ সময়ের নেতৃত্বেরও দাবি জানানো হয়েছে। যে সব ক্ষেত্রে সক্রিয় হিসেবে দৃশ্যমান হবে। তবে পাশাপাশি চিঠিতে এও লেখা হয়েছে যে, রাহুল গান্ধীর বিরুদ্ধে কোনও সমালোচনা করার উদ্দেশ্য তাঁদের নেই। বরং দলের পুনরুজ্জীবনের লক্ষ্যেই তাঁদের এই আর্জি। ওয়ার্কিং কমিটির সদস্য বাছতে নির্বাচনেরও দাবি জানানো হয়েছে চিঠিতে। সোমবার বসছে কংগ্রেসের ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠক। এই চিঠিই সেখানকার মূল আলোচ্য বিষয় হয়ে উঠতে চলেছে বলে আগেই দাবি করেছিল সূত্র।

সূত্র দাবি করেছে, দলের শীর্ষ নেতাদের চিঠির জবাবে সনিয়া জানিয়েছেন, অন্তর্বর্তী সভানেত্রী পদে তাঁর এক বছরের মেয়াদ পূর্ণ হয়েছে। এ বার তিনি সেই পদ থেকে সরে দাঁড়াতে চান। দলের উচিত নয়া সভাপতি নির্বাচন করা। সোমবার কংগ্রেসের ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠকে সনিয়া ফের এই ইচ্ছের কথা তুলে ধরবেন বলে সূত্রের দাবি। যদিও অল ইন্ডিয়া কংগ্রেস কমিটির প্রধান রণদীপ সিং সুরজেওয়ালা এই খবরের বিষয়ে প্রতিক্রিয়া জানিয়ে বলেন, ‘মিসেস গান্ধী এই নিয়ে কোনও নেতার সঙ্গে কিছু বলেননি। কারওকে লিখিত আকারেও কিছু জানাননি। আমরা এই খবর সম্পূর্ণ অস্বীকার করছি।’ তবে সূত্রের দাবি, এই নিয়ে রাজ্যসভার বিরোধী দলনেতা গুলাম নবি আজাদের সঙ্গে ফোনে কথা বলেছেন সনিয়া। সনিয়াকে যে চিঠিটি দেওয়া হয়েছে, তাতে স্বাক্ষর রয়েছেন ২৩ জন কংগ্রেসের শীর্ষ নেতাদের। তাঁদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল, কপিল সিবাল, শশী থারুর, গুলাম নবি আজাদ, পৃথ্বীরাজ চৌহান, বিবেক তনখা, আনন্দ শর্মার নাম, মণীশ তিওয়ারি, রাজ বব্বর, সন্দীপ দীক্ষিত।