এবারের পুজোয় থিমের সব পুজোকে পাল্লা দিয়ে একাই বেশি ভিড় টেনেছিল শ্রীভূমি স্পোর্টিং ক্লাব(Sreebhumi sporting club)। তাই এবার বলা যায়, এবার যত কাণ্ড শ্রীভূমিতেই!

লেকটাউনের এই ক্লাবের এবারের পুজোয় থিম হল দুবাইয়ের আইকনিক বুর্জ খলিফা বিল্ডিং।দুবাইয়ের সেই গগনচুম্বী স্থাপত্যের আদলে তৈরি হয়েছে এবারের শ্রীভূমি স্পোর্টিং ক্লাবের(Sreebhumi sporting club) পুজো মণ্ডপ।

সেই নিয়েই যত কাণ্ড। এবার এই পুজো নিয়ে শ্রীভূমি স্পোর্টিং ক্লাবের চেয়ারম্যান তথা রাজ্যের মন্ত্রী সুজিত বোসকে নাম না করে খোঁচা দিলেন সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়।

নিজের দলের সতীর্থের পুজোর উদ্দেশে তাঁর বার্তা, “উদ্যোক্তাদের আরও সচেতন হওয়া উচিত ছিল।”

প্রথমে বাধা সৃষ্টি করল বুর্জ খলিফার লেজার শো, তার পরে অতিরিক্ত মানুষের আগমনে অনিয়ন্ত্রিত ভিড়।

Sreebhumi puja is now on target of Tmc MP
শ্রীভূমির পুজোয় মানুষের ঢল

বিমানের পাইলটদের সমস্যার কারণে তাঁদের অভিযোগের ভিত্তিতে সপ্তমীতে নেভাতে হয়েছিল লেজার আলো।

তাও ভিড় কমেনি বরং আরও বেড়ে যাচ্ছিল।

সেই কারণেই অষ্টমীতে পুলিশের তরফ থেকে সিদ্ধান্ত নিয়ে মণ্ডপে দর্শনার্থী প্রবেশও বন্ধ করা হয়েছে।

তবুও বুর্জ খলিফা নিয়ে পুজোপ্রেমী বাঙালির উন্মাদনা যেন কমছেই না।

ভিড় একটু কমানোর তাগিদে পূর্ব রেলের তরফে নবমীর দিন শিয়ালদাগামী কোনও স্টাফ স্পেশ্যাল ট্রেন বিধাননগর রোড স্টেশনে থামবে না বলে ঘোষণা করা হয়।

বৃহস্পতিবার এই প্রসঙ্গে মুখ খোলেন শ্রীরামপুরের তৃণমূল সাংসদ। কল্যাণ বলেন,

“সুজিত অত্যন্ত ভাল ছেলে। তবে পুজো উদ্যোক্তাদের কিছু বিষয়ে আরও অনেক সচেতন হওয়া উচিত ছিল।”

তাঁর মতে, বিমানবন্দর এলাকায় যে সকল নিয়ম মেনে পুজো করা প্রয়োজন তা করা হয়নি।

কল্যাণ আরও প্রশ্ন তোলেন, কেন এত মানুষকে একসাথে মণ্ডপে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হল।

তাঁর কথায়, “আমাদের উদ্দেশ্য হওয়া উচিত ছিল যাতে মণ্ডপে ভিড় না হয়।

কিন্তু এখানে এমন কাজ করা হল যাতে লক্ষ লক্ষ মানুষ এসে ভিড় জমাল।”

সুজিত বোসের সমালোচনা না করলেও তাঁর শ্রীভূমি স্পোর্টিং ক্লাবের(Sreebhumi sporting club) পুজোর বেশ কড়া সমালোচনা করেছেন তৃণমূল সাংসদ।