নিউজপোল ডেস্ক:‌ সিঁদুর, টিপ পরে সংসদে গেছিলেন। এবার দুর্গাপুজোয় সামিল হলেন। অঞ্জলি দিলেন। ঢাকের তালে নাচলেন। সেজন্য আবারও নুসরত জাহানের বিরুদ্ধে তোপ দাগলেন ইসলাম যাজক। তৃণমূল সাংসদের এসব কার্যকলাপ ইসলাম–বিরোধী বলে আখ্যা দিলেন তিনি। এই নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী তথা দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় চুপ কেন, প্রশ্ন তুললেন বিজেপি সাংসদ দেবশ্রী চৌধুরি। তাঁর খোঁচা, মুসলিম ভোট হারাতে পারেন ভয়েই চুপ মমতা।


হিন্দু রীতি মেনে বিয়ে করেছেন শিল্পপতি নিখিল জৈনকে। তার পর আর পাঁচটা বিবাহিত বাঙালি মেয়ের মতোই শাখা–সিঁদুর পড়েছেন। এজন্য নুসরতের বিরুদ্ধে আগেও ফতোয়া জারি হয়েছে। এবার পুজোয় সামিল হওয়ার জন্য আরও একবার ইসলাম ধর্মযাজকদের তোপের মুখে তিনি। পাশে দাঁড়িয়ে বিজেপি সাংসদ দেবশ্রীর সওয়াল, বিয়ের পর ভারতীয় রীতি মেনে মেয়েরা স্বামীর ধর্মই পালন করে। ‘‌তাছাড়া ভারতীয় সংবিধান সব নাগরিককে ইচ্ছেমতো ধর্মপালনের অধিকার দিয়েছে’‌। কিন্তু তিনি এ বিষয়ে মমতার চুপ থাকা নিয়ে হতবাক। এ প্রসঙ্গে বলেছেন, ‘‌মমতার অবশ্যই এই ফতোয়া নিয়ে মুখ খোলা উচিত। তাঁর দলের সাংসদের বিরুদ্ধে ফতোয়া জারি হয়েছে। তাও তিনি চুপ কেন?‌’‌ দেবশ্রীর অভিযোগ, মুসলিম ভোট হারাতে পারেন ভয়েই মমতা চুপ।
নুসরতের দুর্গাপুজো করা নিয়ে সম্প্রতি ক্ষোভ জানিয়েছেন ইতেহাদ উলেমা–এ–হিন্দের সহসভাপতি মুফতি আসাদ কাসমি। তিনি বলেছেন, ‘‌ইসলাম মূর্তি পুজোর অনুমতি দেয় না। একমাত্র আল্লার প্রার্থনাই করতে বলা হয়েছে। সেখানে নুসরত দুর্গাপুজো করে ইসলাম–বিরোধী কাজ করেছেন। তিনি বিয়েও করেছেন অমুসলিমকে। তিনি যখন ইসলামে বিশ্বাস করেন না, তখন তাঁর নাম পাল্টে নেওয়া উচিত। এভাবে ইসলামকে অপমান কেন করছেন?‌’‌ এ বিষয়ে তৃণমূল সাংসদ বলেছেন, ‘‌সমস্ত ধর্মের মধ্যে সমন্বয় ঘটানো সমর্থন করি। আমি বাংলায় জন্মেছি। বড় হয়েছি। এখানকার রীতি, সংস্কৃতি মেনে ঠিক কাজই করছি। এখানে আমরা সব ধর্মের উৎসব পালন করি’‌।