নিউজপোল ডেস্ক: মার, পালটা মার, এভাবেই চলছে এ রাজ্যের রাজনীতি। সেই সঙ্গে বেলাগাম কটুবাক্য বর্ষণেরও বিরাম নেই। আর কটুবাক্য দিয়ে বিরোধীদের আক্রমণ করতে সম্প্রতি যদি কেউ নাম কিনে থাকেন, তিনি হলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। কিছুদিন আগেই বাঙালিদের ‘চোর-চিটিংবাজ’ আখ্যা দিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ট্রোলিংয়ের শিকার হয়েছিলেন তিনি। এবার বললেন, বাবুল সুপ্রিয়কে যারা মেরেছে তাদের কাউকে ছাড়া হবে না। বাবুলের চুল ধরে টানা ছাত্রদের যারা মারধর করেছে তাদের স্যালুটও জানিয়েছেন দিলীপ।

মাসখানেক আগে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে ঢুকতে গিয়ে ছাত্রছাত্রীদের প্রবল প্রতিবাদের সম্মুখীন হন আসানসোলের বিজেপি সাংসদ বাবুল সুপ্রিয়। দুই পক্ষে হাতাহাতি শুরু হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্র বাবুলের চুল ধরে টানেন। বাবুলের ওপরেও মারধরের অভিযোগ করেছেন ছাত্র-ছাত্রীরা। দিনকয়েক আগে বাবুলের চুল ধরে টানা দেবাঞ্জন বল্লভের ওপরে হামলা হয়। বর্ধমানের আলিশা বাসস্ট্যান্ডে নামিয়ে মারধর করা হয় তাঁকে। এ প্রসঙ্গে দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘বর্ধমানের যে ছেলেটি মন্ত্রীকে মেরেছিল তাকে বাস থেকে নামিয়েছি।’ দেবাঞ্জনকে যারা মেরেছে তাদের স্যালুটও জানিয়েছেন দিলীপ।’ সেই সঙ্গেই বলেন, যাদবপুরে যারা মন্ত্রীর গায়ে হাত দিয়েছিল তাদের ছেড়ে দেওয়া হবে না। অনেক ‘শহিদ বেদী’ তৈরি করে দেওয়া হবে বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি।

বাবুল-কাণ্ডের কিছুদিন পর দিলীপ ঘোষ বলেছিলেন, যাদবপুর দেশদ্রোহীদের আখড়া হয়ে গেছে। সেখানে বালাকোটের মতো সার্জিক্যাল স্ট্রাইক করা হবে। তাঁর এই মন্তব্য নিয়েও ব্যাপক বিতর্কের সৃষ্টি হয়। তাতে অবশ্য ভ্রুক্ষেপ নেই দিলীপের। তিনি বলেই চলেছেন।