নিউজপোল ডেস্ক:‌ গত কয়েক সপ্তাহে গোটা দেশজুড়ে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে হু হু করে। কোথাও ৬০টাকা প্রতি কিলো, কোথাও ৮০টাকা প্রতি কিলো দরে বিক্রি হচ্ছে মহার্ঘ পেঁয়াজ। যা নিয়ে তীব্র অসন্তোষ রয়েছে, ক্রেতা–বিক্রেতার দুই তরফেই। এরই মধ্যে উৎসবের মরসুমে পেঁয়াজকে কেন্দ্র করেই এই বাংলার বুকে ঘটে গেল গেল এমন এক ঘটনা, যা সকলকে চমকে দিয়েছে। এগরোলে অতিরিক্ত পেঁয়াজ চাওয়ায় মেরে ক্রেতার মাথা ফাটিয়ে দিলেন রোলবিক্রেতা। দশমীর রাতে ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিণ ২৪ পরগনার ক্যানিংয়ে।
সপরিবারে পুজো পরিক্রমায় বেরিয়েছিলেন জীবনতলার কলাড়িয়া গ্রামের বাসিন্দা শচীন রায়। ঘোরাঘুরির ফাঁকে তাঁর ছোট মেয়ে এগরোল খাওয়ার আবদার করে। শচীনের জামাই তাপস মণ্ডল মণ্ডপের পাশের অস্থায়ী রোলের দোকানে যান এগরোল কিনতে। সেই মুহুর্তে শচীনের মেয়ে রোলে একটু বেশি পেঁয়াজ দিতে বলায় বিক্রেতার সঙ্গে শুরু হয় বচসা। প্রত্যক্ষদর্শীদের অভিযোগ, শচীনের মেয়েকে অশ্লীল ভাষায় কথা শোনাতে থাকেন বিক্রেতা। তাপসবাবু প্রতিবাদ জানালে তিনি গরম চাটু দিয়ে তাপসবাবুকে আঘাত করেন। জামাইকে বাঁচাতে গিয়ে গুরুতর ভাবে আহত হন শচীন নিজে। তাঁকে রোল বিক্রেতা সজোরে গরম খুন্তি দিয়ে মাথায় আঘাত করেন। এখন তাঁর অবস্থা আশঙ্কাজনক। তিনি ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। শচীনের পরিবারের সদস্যদের দাবি, ঘটনাস্থলে দু’‌জন পুলিশকর্মী উপস্থিত থাকলেও তাঁরা সহযোগিতা করেননি। এমনকী শচীনকে হাসপাতালে নিয়ে যেতেও সাহায্য করেননি। পরে স্থানীয় যুবকদের উদ্যোগেই তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে আক্রান্তদের পরিবার। সেখানেও ওই স্থানীয় যুবকরাই সহযোগিতা করেছেন বলে জানান তাঁরা।