নিউজপোল ডেস্ক: রাজ্যে বেকারত্ব বাড়ছে। এজন্য মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তরুণ প্রজন্মের অভিযোগের মুখে পড়েছেন বহুবার। রাজ্যে শিল্পের বেহাল দশা নিয়েও কথা তুলেছেন অনেকে। সেই পরিস্থিতিতে রাজ্যে বেকারত্ব ঘোচাতে মুখ্যমন্ত্রীর চপশিল্পের পরামর্শের কথা অনেকেই জানেন। তবে এবার দিঘায় গিয়ে তিনি সম্প্রতি ঝালমুড়ি-ফুচকার ব্যবসার পরামর্শও দিলেন। কর্মসংস্থানের এই অভিনব উপায় নিয়ে শুরু হয়েছে আমজনতার জল্পনা। মুখ্যমন্ত্রীকে কটাক্ষ করে কেউ কেউ বলছেন, চপের পর এবার ঝালমুড়ি-ফুচকা!

দিঘায় আধুনিক কনভেনশন সেন্টারের উদ্বোধনে গিয়ে পর্যটন শিল্পের উন্নতির জন্য এবং স্থানীয় বাসিন্দাদের কর্মসংস্থানের জন্য বেশ কয়েকটি পরামর্শ দিলেন মুখ্যমন্ত্রী। এই ঘোষণা প্রসঙ্গে পর্যটকদের লক্ষ্মী বলে তিনি স্থানীয়দের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘মনে রাখবেন, পর্যটক এলে আপনার ঘরের ছেলেমেয়েদের কর্মসংস্থান হবে। ওঁরা এলে আপনার ব্যবসা বাড়বে, আপনার জায়গার লক্ষ্মীশ্রী বাড়বে।’ এরপরই তিনি ঝালমুড়ির দোকান, ফুচকার দোকান করার পরামর্শ দেন স্থানীয়দের। এছাড়াও ঘটি গরম, চা-কফির দোকান করার কথাও বলেছেন এই দিনের ভাষণে। পর্যটকরা যেন কোনও রকম সমস্যার মুখে না পড়েন, ব্যবসায়ীদের উদ্দেশেও কড়া বার্তা দিয়েছেন তিনি। এছাড়া সমুদ্রের সৌন্দর্য বজায় রাখার জন্য প্রশাসনকে কঠোর হওয়ার পরামর্শ মুখ্যমন্ত্রীর। তাঁর মূল বক্তব্যই হল, যত পর্যটক আসবেন, ততই হবে কর্মসংস্থান।

মুখ্যমন্ত্রীর ঝালমুড়ি-ফুচকা দোকান গড়ার তত্ত্বে হাসির খোরাক পেয়েছেন অনেকেই। সোশ্যাল মিডিয়ায় মজা করে অনেকে লিখেছেন, ‘এবার কি ঝালমুড়ি শিল্প? নাকি ফুচকা শিল্প?’ তিনি দিঘা পর্যটনকেন্দ্রের উন্নয়নের কথা মাথায় রেখেই এই পরামর্শ দিয়েছেন, সেই যুক্তি দিয়ে সওয়াল করছেন কেউ কেউ।