প্রায় সময় দেখা যায় বিভিন্ন আশ্চর্য সব কাজ কর্মের মধ্য দিয়ে প্রতিভাশালী ব্যক্তিদের নাম উঠছে গিনিস বুকে (ginis book) । গিনিস বুকে নাম ওঠা মানেই তা অত্যন্ত গর্বের বিষয়। কিন্তু এক্ষেত্রে এমন বিশেষ কিছু প্রতিভা থাকে যা একেবারেই নজরকাড়া দৃষ্টান্ত।

জার্মানির (Germany) রলফ বুখহলজে (Rolf Buchholz) হলেন সেই তালিকার মধ্যে একজন অন্যতম ব্যক্তি। নিজের শরীরেই ছিদ্র করেছেন ৪৫৩ টি, তার পাশাপাশি মাথায় গজিয়ে ফেলেছেন শিং।

তাঁর ভয়ঙ্কর রুপ দেখে বাচ্চারাও পর্যন্ত ভয় পেতে বাধ্য। তাঁর এই প্রতিভাকে কুর্নিশ জানাতেই গিনিস বুকে নাম তোলা হয়। শরীরের এই পরিবর্তনের পেছনে ছিল প্রায় কুড়ি বছরের পরিশ্রম। ৪০ বছর বয়সের পর থেকেই তিনি শরীরের নানা রকম পরিবর্তন করতে শুরু করেন। প্রায় ৫২ বারেরও বেশি নিজের শরীরের পরিবর্তন ঘটিয়েছেন তিনি। চোখ, ঠোঁট, কান, নাক এমনকি জিভ পর্যন্ত বাদ দেননি।

রীতিমতো ওয়ার্ল্ড রেকর্ড (world record) করে ফেলেছেন নিজের শরীরের বিস্ময়কর পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে। রলফ বুখহলজে একজন টেলিকম সংস্থার তথ্য প্রযুক্তির কর্মী।

তিনি সাধারণ মানুষের মধ্যে একেবারেই পড়েন না। মাথায় দুটি শিং করার উদ্দেশ্যে নিজের শরীরে দিনের পর দিন ছিদ্র এবং পরিবর্তন ঘটিয়ে গেছেন। ২০১০ সালে নিজের শরীরে সর্বাধিক ছিদ্রের জন্য তিনি গিনিস বুকে জায়গা করে নেন। ২০১৪ সালে বিমানবন্দর থেকে হোটেলে যাওয়ার পথেই তিনি ক্যামেরাবন্দি হন এবং তাঁর কীর্তি বিশ্বব্যাপী ভাইরাল হয়।

আরো পড়ুন:  বেশ কিছু সিরিজের সাজেশন নিয়ে হাজির