‘লক্ষ্মীর ভান্ডার বেশিদিন চলবে না। লক্ষ্মীর ভান্ডার কতদিন চলবে নাকি পরে পেঁচার ভান্ডার চালু হবে তা পরে দেখা যাবে’। বর্তমানে রাজ্যের সবচেয়ে জনপ্রিয় প্রকল্প লক্ষীর ভান্ডারকে এই ভাবেই কটাক্ষ করলেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার (Sukanta Majumder)।

বিজেপির রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার (Sukanta Majumder) এবং বিজেপির সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি দিলীপ ঘোষ দু’দিনের কর্মসূচি নিয়ে বৃহস্পতিবার বীরভূমে আসেন। বৃহস্পতিবার বীরভূমের সিউড়িতে কর্মসূচি করার পর শুক্রবার সকালে তারাপীঠ মন্দিরের যান তারা মায়ের পূজা দেওয়ার জন্য। সেখানেই তিনি রাজ্য সরকারের রাজকোষ, বিভিন্ন প্রকল্প নিয়ে রাজ্য সরকারকে কটাক্ষ করেন।

রাজ্য সরকারের বিভিন্ন প্রকল্প নিয়ে মন্তব্য করতে গিয়ে প্রথমে উঠে আসে লক্ষ্মীর ভান্ডারের প্রসঙ্গ। এই প্রকল্প প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “লক্ষ্মীর ভান্ডার খুব বেশিদিন চলবে বলে আমার মনে হয় না। অলরেডি আপনারা দেখেছেন দুয়ারে রেশন প্রকল্প নিয়ে রেশন ডিলাররা জানিয়ে দিয়েছেন এইভাবে চলতে পারে না। কারণ এই প্রকল্পের জন্য বরাদ্দ নেই। আপনি লোকের বাড়ি অব্দি রেশন পৌঁছে দেবেন তার জন্য তেল, কর্মী লাগবে তো। সেই টাকাগুলো তো দিতে হবে বাজেটে। সেই রকম কোন বাজেট নেই রাজ্য সরকারের। এইগুলো সবই চমক।”

এর পাশাপাশি তিনি লক্ষ্মীর ভান্ডারের টাকা নিয়ে কটাক্ষ করে জানান, “এখনকার দিনে ৫০০ টাকায় কি হয়? দিদিমনি বলেছিলেন ৪ মাস আগে চালু করবেন, জুন মাস থেকে চালু করবেন। তাহলে এই চার মাসের বোনাস বলুন বা যাই বলুন তাতো দেওয়া উচিত ছিল পুজোর সময়। কিন্তু কেন জনগণ পেল না? মুখ্যমন্ত্রীর আগে তার উত্তর দেওয়া উচিত। তারপরে লক্ষ্মীর ভান্ডার কতদিন চলবে না পেঁচার ভান্ডার চালু হবে তারপরে দেখা যাবে।”

প্রসঙ্গত, রাজ্য সরকারের এই লক্ষ্মীর ভান্ডার প্রকল্পের মাধ্যমে রাজ্যের সাধারণ শ্রেণীর মহিলাদের মাসে মাসে ৫০০ টাকা এবং তপশিলি জাতি ও উপজাতি শ্রেণীর মহিলাদের মাসে মাসে ১০০০ টাকা করে দেওয়া হচ্ছে রাজ্য সরকারের তরফ থেকে। ইতিমধ্যেই রাজ্য সরকারের তরফ থেকে দু’মাসের টাকা দেওয়া হয়েছে। আর এই প্রকল্প নিয়ে এবার কটাক্ষ করলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার (Sukanta Majumder)।

 

আরও পড়ুন : Bangladesh: নয়াদিল্লিকে কী বার্তা বাংলাদেশের?