‘আমি স্কুলে যেতে চাই…।’ না,এবার আর কোনো কোনও কাতর আর্তি নয়। শিক্ষার অধিকার ছিনিয়ে নিতে তালিবানকে কড়া হুঁশিয়ারি(Protest) এক আফগান কিশোরীর।

বন্দুকের নলকে আর ভয় না করে এক পাহাড়ের পাদদেশে তালিবানের(taliban) মুখোমুখি দাঁড়িয়ে এক তরুণী। তার পাশে তার সমর্থনে প্ল্যাকার্ড হাতে বেশ কয়েকজন খুদে পড়ুয়াও দাঁড়িয়ে।

সকলের হাতে রয়েছে প্ল্যাকার্ড। প্ল্যাকার্ডে ইংরেজিতে লেখা, ‘উই ওয়ান্ট ফ্রিডম।’

বিগত প্রায় দেড় মাস ধরে তালিবানি(taliban) শাসনে থাকতে থাকতে দেওয়ালে পিঠ ঠেকে গিয়ে গলার সুর সপ্তমে চড়িয়ে, তালিবানের দিকে আঙুল উঁচিয়ে ওই কিশোরী বলছে—‘আমি স্কুলে যেতে চাই।

আমি জন্মেছি বাড়ি বসে খেতে কিংবা ঘুমিয়ে থাকতে নয়। ঘরবন্দি হয়ে জীবন যাপন করতেও নয়। জন্মেছি, পড়াশোনা করে বিশ্বদরবারে নারীর মূল্যকে জাহির করতে।’

এমনই এক মুহূর্তের সাক্ষী হল আফগানিস্তান(Afghanistan)।

সম্প্রতি আফগানিস্তানে মাদ্রাসা সহ সরকারি-বেসরকারি সব স্কুল খোলার বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে তালিবান সরকার।

কিন্তু তা শরিয়তি আইন মেনে। অর্থাৎ মেয়েরা যেতে পারবে না স্কুল।

তালিবানের এমন সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে সরব হয়েছে ছাত্র-ছাত্রী উভয়েই।

বন্দুকের নলকে উপেক্ষা করে প্রকাশ্যে বেরিয়ে এসে স্কুলের দরজা সকলের জন্য উন্মুক্ত করার দাবি জানাচ্ছে তারা।

A student protest against Taliban
পড়ুয়াদের প্রতিবাদ

ওই প্রতিবাদী কিশোরী তাদেরই একজন প্রতিনিধি।

খুদে পড়ুয়াদের নিয়ে বন্দুকের নলের সামনেও আন্দোলন(protest) চালিয়ে যাচ্ছে সে।

তার সেই আন্দোলনেরই একটা ভিডিও ক্লিপিংস ছড়িয়ে পড়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

আফগান সাংবাদিক বিলাল সরওয়ারির মাধ্যমে।

রকেট গতিতে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে যায় ভিডিওটি। তালিবানি শাসনে কিশোরীর প্রতিবাদের(Protest) এই ‘দুঃসাহস’ দেখে স্তম্ভিত নেটিজেনরা।

অনেকেই তাকে সম্মান জানিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায়(social media) লিখেছেন—‘তুমি আফগান নারী সমাজের অহঙ্কার। পাহাড়ও ঢাকা পড়ে গিয়েছে তোমার ‘উচ্চতা’য়।’

কেউ কেউ আবার মন্তব্য করেছেন, ‘তালিবানি শাসনে মহিলাদের শিক্ষার অধিকার ছিনিয়ে আনতে তোমার এই অদম্য লড়াইয়ে আমরা পাশে রয়েছি…এগিয়ে যাও।’

আরও পড়ুন – Gulab: গুলাব ঠেকাতে কী কী পদক্ষেপ নিলো রাজ্য সরকার