নিউজপোল ডেস্কঃ করোনা নিয়ে উত্তাল বিশ্ব, নাজেহাল বিশ্ববাসী। লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা পাশপাশি হানা দিয়েছে মৃতের সংখ্যাও। গ্রাফ লক্ষ্য করলে দেখা যাবে প্রত্যকদিনই যেন আগের দিনের সংক্রমণের রেকর্ড ভেঙে দিচ্ছে মারণ ভাইরাস নোভেল করোনা ভাইরাস। বৃহস্পতিবারের সংক্রমিতের সংখ্যা পেরিয়ে গেলো এই ভয়ঙ্কর সংক্রামক রোগ।

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের সাম্প্রতিক পরিসংখ্যান বলছে, গত ২৪ ঘণ্টায় ৭৭,২৬৬ জন মানুষ এই মারণ রোগে আক্রান্ত হয়েছেন। এর ফলে দেশে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা হলো ৩৩,৮৭,৫০০ লক্ষ। পাশাপাশি ভারতে কোভিড-১৯ এর কারণে গত একদিনে মৃত্যু হলো ১,০৫৭ জন করোনা রোগীর, ফলে দেশে মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে পৌঁছলো ৬১,৫২৯ এ।গোটা বিশ্বের বিচারে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ব্রাজিলের পরে তৃতীয় সর্বোচ্চ করোনা সংক্রমণের ঘটনা ঘটেছে ভারতেই। তবে গত ৪ ঠা অগাস্ট থেকে বিশ্বে সাম্প্রতিক দৈনিক সংক্রমণের বিচারে শীর্ষে এই দেশ।

এখনও পর্যন্ত ২৫,৮৩,৯৪৮ জন রোগী এই রোগে সংক্রমিত হওয়ার পরেও সুস্থ হয়ে উঠেছেন। ফলে ভারতে করোনা থেকে পুনরুদ্ধারের হার বেড়ে ৭৬.২৭ শতাংশে পৌঁছেছে। মোট করোনা সংক্রমণের বেশীরভাগ রোগীর সন্ধান মিলেছে মহারাষ্ট্রে, সেখানে মোট আক্রান্ত ৭,৩৩,৫৬৮ জন। মহারাষ্ট্রের পরেই সংক্রমণের হিসাবে তার পরেই রয়েছে তামিলনাড়ু, অন্ধ্রপ্রদেশ ও কর্নাটক।

বৃহস্পতিবার, কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন, জিএসটির নীতি নির্ধারক বৈঠকের পর বলেন যে,  করোনা ভাইরাস যেভাবে মহামারী রূপে দেখা দেওয়ার পিছনে আছে  “ঈশ্বরের কীর্তিকলাপ” এবং এই অপ্রত্যাশিত ধাক্কার কারণে জিএসটি আদায়ের বিষয়টি প্রভাবিত হয়েছে।