নিউজপোল ডেস্ক: দীর্ঘ ৫০ বছর ধরে দৈনন্দিন জীবন একই ছাঁচে চলছে প্রৌঢ় চিকিৎসকটির। সকাল সাড়ে ১০টায় ক্লিনিক খোলেন, রোগী দেখে বন্ধ করেন সন্ধে সাড়ে ৬টায়। একটু বিশ্রাম নিয়ে ফের রাত আটটায় খুলে আবার ঘণ্টা দেড় দুই রোগী দেখেন। ৭৯ বছর বয়সি নাক-কান-গলা বিশেষজ্ঞ ড. আনাপ্পা এন বেল তিন সহকারীর সাহায্যে দিনে ৮০ থেকে ১০০ রোগীর চিকিৎসা করেন। মনে হতেই পারে, এর মধ্যে চমকপ্রদ এমন কী রয়েছে। আছে, রোগীদের কাছ থেকে তিনি মাত্র ১০ টাকা করে ফি নেন। এই ১০ টাকার মধ্যে রোগ নির্ণয় তো আছেই, সঙ্গে আছে ওষুধও! অথচ একসময়ের অর্থের অভাবে পড়াশোনাই বন্ধ হয়ে গেছিল তাঁর।

কর্নাটকের বেলগাভি জেলার এই চিকিৎসককে সবাই একডাকে ‘হাট্টা রুপায়ি ডক্টর’ অর্থাৎ ১০ টাকার ডাক্তার নামে চেনে। অর্থের অভাবে তাঁর পড়াশোনা বন্ধ হয়ে যাওয়ার কথা স্মরণ করে ড. বেল জানান, ‘আমি দারিদ্র দেখেছি এবং যখন পয়সার অভাবে ছোটখাট ওষুধ কেনার ক্ষমতা থাকে না তখন কেমন লাগে আমার জানা আছে।’ চিরকালই চিকিৎসক হয়ে মানুষের সেবা করতে চাওয়া মানুষটির বাবা-মা যখন পড়াশোনার খরচ চালাতে অসমর্থ হন, তখনও হাল ছাড়েননি তিনি। আত্মীয়দের কাছে য়ার্থিক সাহায্য নিয়ে কষ্টেসৃষ্টে এমবিবিএস পাশ করে নেন। সরকারি চিকিৎসক হিসেবে গ্রামীণ এলাকায় চিকিৎসা করার পর ১৯৯৮ সালে বেলগাভি এলাকায় নিজের চেম্বার খোলেন। সেই থেকেই মানুষের সেবায় নিয়োজিত ‘১০ টাকার ডাক্তার’।