নিউজপোল ডেস্কঃ কলকাতা পুরসভার অন্দরে আবারও থাবা মারণ ভাইরাসের। রাজ্য মন্ত্রীসভার একাধিক মন্ত্রী যেমন ইতিমধ্যেই মারণ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ঠিক তেমনি শাসক দলের বেশ কিছু বিধায়কও এই মারণ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। আবার তমোনাশ ঘোষ ও সমরেশ দাসের মতো বিধায়ক তো এই মারণ ভাইরাসের শিকার হয়ে চলে গেছেন চিরতরে। এবার সেই মারণ ভাইরাসের থাবায় কলকাতা পুরনিগমের প্রাক্তন ডেপুটি মেয়র তথা বর্তমান কলকাতা পুরনিগমের প্রশাসকমণ্ডলীর অন্যতম সদস্য অতীন ঘোষ। বুধবার সন্ধ্যাবেলাতেই তিনি জানতে পেরেছেন যে তিনি সস্ত্রীক করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

জানা গিয়েছে, কলকাতা পুরনিগমের তরফে বাড়ি বাড়ি গিয়ে যে র‍্যাপিড টেস্ট করানো হচ্ছে সেই টেস্ট করিয়েছিলেন ডেপুটি মেয়র ও তাঁর স্ত্রী। সেই টেস্টেরই রিপোর্ট বুধবার সন্ধ্যায় পাওয়া গিয়েছে। তাতেই দেখা গিয়েছে, অতীনবাবু ও তাঁর স্ত্রী উভয়েই আক্রান্ত করোনায়। রিপোর্ট পাওয়ার পর বুধবার সন্ধ্যা থেকেই তাঁরা হোম আইসোলেশনে চলে গিয়েছেন। তবে তাঁদের মেয়ে করোনা আক্রান্ত কিনা তা জানার জন্য বৃহস্পতিবার করোনা টেস্ট করানো হবে। গত ১৯ তারিখ থেকেই জ্বর ছিল অতীনবাবুর।

এদিকে তাঁর করোনায় আক্রান্ত হওয়ার খবর কলকাতা পুরভবনে পৌঁছাতেই চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। মঙ্গলবারই অতীনবাবু পুরভবনে এসেছিলেন একটি বৈঠকে যোগ দিতে। পরে ফিরহাদ হাকিমের সঙ্গে ঘন্টা দেড়েক বৈঠকও করেন। তাই বৃহস্পতিবার কলকাতা পুরভবন স্যানিটাইজড করা হতে পারে বলে জানা গিয়েছে। এবং একইসঙ্গে মেয়র ফিরহাদ হাকিমও গিয়েছেন আইসোলেশনে, এমনটায় জানা যাচ্ছে সূত্রের তরফে।