নিউজপোল ডেস্ক: কিছুদিন আগেই বিদ্যাসাগরের ২০০ বছরের জন্মদিন উদযাপন হয়েছে। ঠিক এরপরেই এক চাঞ্চল্যকর তথ্য ফাঁস করলেন যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক সুতপা সেনগুপ্ত। একাধারে তিনি সুপরিচিত কবি-ও। কবি শঙ্খ ঘোষের স্নেহধন্যা হিসেবে সুপরিচিত সুতপার এমন মন্তব্য ঘিরে ইতিমধ্যেই চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

বাঙালি নেটাগরিকরা বিদ্যাসাগরের প্রতি এমন আক্রমণ মেনে নিতে পারছেন না কিছুতেই। রবিবার ফেসবুকে নিজেরই একটি পোস্টে মন্তব্য করতে গিয়ে সুতপা সেনগুপ্ত লিখে বসেন, “আমার বাবা অনেক দিন আগে, তখন আমি ক্লাস এইট, জানিয়েছিলেন, কুমোরটুলির একটি পরিবারের কথা। তাঁরা বিদ্যাসাগর মশায়ের বংশধর। এক অসহায় মহিলাকে তিনি সহায়তা দিয়েছিলেন, পরে তার সঙ্গে বিদ্যাসাগরের একটি সম্পর্ক ঘটে যায় ও এক সন্তান হয়।”

তবে বাঙালির আইকন বিদ্যাসাগরের এমন তথ্য এর আগে কারোর জানা ছিল না বলে চাঞ্চল্য ছড়ায়। অন্যদিকে যাদুবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের নামী অধ্যাপক সুতপা সেনগুপ্তর এমন দাবি উড়িয়েও দেওয়া যাচ্ছে না। সেই কারণেই ঘটনার প্রমাণ চাইতে শুরু করেছেন কেউ কেউ। বিদ্যাসাগরের বিষয়ে এমন তথ্যের জেরে নিন্দার ঝড় বইছে ফেসবুকে।

অনেকেই অধ্যাপকের মন্তব্যের স্ক্রিনশট পোস্ট করে সমালোচনা করেছেন। তবে এ বিষয়ে সুতপা সেনগুপ্তর কোনও মন্তব্য এখনও পর্যন্ত পাওয়া যায়নি। এক মহিলা মন্তব্য করেছেন, বিদ্যাসাগরের জন্যই আজ ভারতের মেয়েরা এগিয়ে। নারী শিক্ষাপ্রসারে বিদ্যাসাগরের ভূমিকা অবিস্মরণীয়। তাই অধ্যাপকের এমন দাবি কিছুতেই মেনে নেওয়া যায় না।