সোশ্যাল মিডিয়াগুলোকে নিয়ন্ত্রণে আনতে চায় কেন্দ্র। সেজন্য ২৫ ফেব্রুয়ারি নতুন নীতি ঘোষণা করেছিল। নতুন নীতি মেনে চলার জন্য ফেসবুক, টুইটার, ইনস্টাগ্রামের মতো সংস্থাগুলোকে তিন মাস সময়ও দিয়েছিল। সেই তিন মাস সময় শেষ হচ্ছে ২৬ মে। কিন্তু এখন পর্যন্ত সোশ্যাল মিডিয়া সংস্থাগুলো কিছুই করেনি। সূত্রের খবর, বাকি দু’‌দিনেও কিছু না করলে এদেশ থেকে পাট চোকাতে হতে পারে ফেসবুক সহ সমস্ত সোশ্যাল মিডিয়াকে। তাদের বিরুদ্ধে অপরাধের মামলাও করতে পারে মোদি সরকার।
সোশ্যাল মিডিয়ার পোস্ট নিয়ে প্রায়ই ক্ষোভ তৈরি হয়। এই ক্ষোভ নিরসনের জন্য তিন স্তরীয় পর্যবেক্ষণ পদ্ধতি চালু করতে চাইছে কেন্দ্র। নতুন বিধিতে অভিযোগ পেয়ে খতিয়ে দেখার জন্য এক জনকে নিয়োগ করতে হবে সব সংস্থাকে। সেই ব্যক্তি অবশ্যই ভারতের বাসিন্দা হতে হবে। তাঁর নাম, পরিচয় জানাতে হবে কেন্দ্রকে। আপত্তিকর পোস্ট নিয়ে অভিযোগ করা হলে ওই ব্যক্তিই খতিয়ে দেখবেন।
নতুন বিধিতে সোশ্যাল মিডিয়ার পোস্টের ওপর নজর রাখার জন্য একটি কমিটিও গড়া হচ্ছে। সেই কমিটির সদস্য হবেন প্রতিরক্ষা, বিদেশ, মহিলা ও শিশু কল্যাণ, তথ্যপ্রযুক্তি, আইন, তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রকের প্রতিনিধিরা। তাছাড়াও কেন্দ্র যুগ্ম সচিব পর্যায়ের এক জন অফিসার নিয়োগ করবেন, যাঁর হাতে কোনও পোস্ট বা কনটেন্ট ব্লক করার ক্ষমতা থাকবে।
সোশ্যাল মিডিয়া সংস্থাগুলোর তরফে জানানো হয়েছে, আমেরিকায় তাদের সদর দপ্তরের অনুমোদন ছাড়া এখনই এই নীতিতে সায় দিতে পারবে না। এজন্য ৬ মাস সময় চেয়ে নিয়েছে। কিন্তু কেন্দ্রের একটি সূত্র বলছে, ভারতে থেকে ব্যবসা করতে গেলে এদেশের নীতিই মানতে হবে। আমেরিকার সদর দপ্তরের দোহাই দেওয়া যাবে না।