নিউজপোল ডেস্ক: সম্প্রতি তেলঙ্গনার হায়দরাবাদে ঘটে গেছে নির্মম এক ধর্ষণ-হত্যাকাণ্ড। সারা দেশ জুড়ে দর্শকদের ফাঁসির দাবি উঠেছে, যেটা সমর্থন করেছেন বহু বিশিষ্ট ব্যক্তিত্বও। কিন্তু শুধু কঠোর শাস্তি দিলেই যে এই সমস্যার সমাধান হবে না, সেটাও মনে করছেন অনেকেই। নারী সুরক্ষার বিষয়ে জোর দেওয়ার কথাও তুলছেন অনেকেই। এর মধ্যেই তেলঙ্গনার একটি গ্রামে নারী সুরক্ষার জন্য নেওয়া এক অভিনব পদক্ষেপের কথা জানা গেল। এই গ্রামে গত তিন মাস ধরেই নিষিদ্ধ মদ এবং ইভ টিজাররা।

তেলঙ্গনার করিমনগরের এক ছোট্ট গ্রামে নেওয়া হয়েছে এই সিদ্ধান্ত। মহিলাদের বিরক্ত করে এরকম কাউকেই গ্রামে থাকতে দিতে রাজি নন পঞ্চায়েত সদস্যরা। অভিযোগ প্রমাণিত হলেই হতে হবে বিতাড়িত। এর পাশাপাশি, মদ এবং মদ্যপানও নিষিদ্ধ করেছেন তাঁরা। পঞ্চায়েতের দাবি, মদের প্রভাবে অল্পবয়সীদের মধ্যে তাদের ভেতরের ‘রাক্ষস’ জেগে ওঠে। সেটার ফলেই এই ধরনের অনৈতিক কাজকর্ম করে ফেলে তারা। তবে প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষদের ক্ষেত্রে এই নিয়ম জারি করা হয়নি বলেই জানা গেছে। গ্রামের নবীন এবং প্রবীণ মিলে সর্বসম্মতিক্রমে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। গ্রামবাসীদের বক্তব্য, সকলের উচিত গ্রামের প্রত্যেকটি মহিলাকেই যথাযোগ্য সম্মান দেওয়া এবং তাঁদের নিজেদের পরিবারের সদস্য বলে মনে করা।

উল্লেখযোগ্য বিষয় হল, গত তিন মাস যাবত এই নিয়ম বহাল হওয়ার পর গ্রামে ঘটেনি কোনও ইভ টিজিংয়ের মতো ঘটনা। গ্রামের এক কিশোরী জানান, আগে রাত করে বাড়ি ফিরতে ভয় পেত তারা। এখন সেরকম কোনও ভয় আর নেই তাদের। এই গ্রামের দেখাদেখি আশেপাশের অন্যান্য কয়েকটি গ্রামেও এই সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা ভাবনা চিন্তা করা হচ্ছে।