নিউজপোল ডেস্ক: দুনিয়ায় কতকিছুই না ঘটে! কিন্তু সাপের সঙ্গে বিয়ের কথা ভেবেছেন কখনও? তাও আবার বিষধর সাপ। শুনতে অবাক লাগলেও এমনই ঘটেছে থাইল্যান্ডে। বিষধর গোখরো সাপকে বিয়ে করলেন এক যুবক। সোশ্যাল মিডিয়ায় তা নিয়ে শুরু হয়েছে জল্পনা। কিন্তু, কেন তাঁর এমন সিদ্ধান্ত?

থাইল্যান্ডের কাঞ্চনাবুড়ির বাসিন্দাদের কাছে খুবই পরিচিত এই যুবক। যদিও তাঁর নাম জানা যায়নি। কিন্তু এক স্থানীয় বাসিন্দার কথায়, ‘ওই যুবক কখনও সাপটাকে ছেড়ে থাকেননি। তিনি যেখানেই যান, সঙ্গে নিয়ে যান সাপটিকে। এমনকী, ঘুমনোর সময়েও তাঁর সঙ্গী ওই ১০ ফুট লম্বা গোখরো সাপটি।’ তবে তরুণের এই সিদ্ধান্তের পেছনে রয়েছে একটি বিশেষ কাহিনি। এই ঘটনার বছর পাঁচেক আগেই তিনি তাঁর সঙ্গিনীকে হারিয়েছিলেন। তাই তাঁর বিশ্বাস, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া থেকে উদ্ধার করা এই বিষধর সাপটি তাঁর প্রাক্তন প্রেমিকারই অন্য রূপ। বৌদ্ধ ধর্ম অনুসারে, মৃত্যুর পর মানুষ অন্য প্রাণীর রূপ ধারণ করে পৃথিবীতে জন্ম নেয়। এই যুবকও বৌদ্ধধর্মে বিশ্বাসী। এই কারণেই তাঁর টিভি দেখা, জিমে যাওয়া কিংবা ঘরে বসে কোনও বোর্ড গেম খেলার সঙ্গী একমাত্র ওই ১০ ফুট লম্বা গোখরো সাপটি।

কয়েকবছর আগে ভারতেও এমন বিচিত্র ঘটনা ঘটেছিল। ঝাড়খণ্ডের এক প্রত্যন্ত গ্রামের সাত বছরের কিশোরকে বলপূর্বক একটি মেয়ে কুকুরের সঙ্গে বিয়ে দেওয়া হয়েছিল। তার পেছনে ছিল কুসংস্কার। ভাগ্যগণনা করে এক জ্যোতিষ জানিয়েছিলেন, অল্প বয়সেই ওই কিশোরের প্রথম স্ত্রী মারা যাবেন। তাই ভবিষ্যৎ বদলানোর জন্য মেয়ে কুকুরের সঙ্গে বিয়ে দিয়েছিলেন পরিবারের সদস্যরা। অন্যদিকে এই থাই যুবকের ঘটনাও কুসংস্কার বলেই মনে করছেন স্থানীয়রা।