নিউজপোল ডেস্ক: ছোটবেলা থেকেই সাধারণের তুলনায় স্থূলকায় চেহারা। তাই সহপাঠীদের ঠাট্টা-উপহাসের পাত্র হওয়া ছিল নৈমিত্যিক বিষয়। ওজন বাড়তে বাড়তে একটা সময় ১৭১ কেজিতে পৌঁছে যায় আমেরিকার ইলিনয়েসের রকফোর্ড এলাকার ১৯ বছরের তরুণ ইথান টেলরের। এরপরেই স্বাস্থ্য ফেরাতে জিমে ভর্তি হন তিনি, দু’বছরের কঠোর পরিশ্রমের পর আজ ইথানকে দেখে চেনাই যায় না। কারণ, অর্ধেক কমিয়ে এখন তাঁর ওজন ৮৬ কেজি। সম্প্রতি একটি ভিডিও প্রকাশ করেছেন ইথান যা সোশ্যাল মিডিয়ার কল্যাণে বহু মানুষের অনুপ্রেরণার উৎস হয়ে দাঁড়িয়েছে।

ইথান বলছেন, ‘ওজনের জন্য ছোট থেকেই লোকজন আমাকে নিজে মশকরা করত। সেই এলিমেন্টারি স্কুল থেকে মিডল, হাইস্কুল হয়ে কলেজ অবধি।’ ইথানের কথায়, এই ঠাট্টা-শ্লেষের জবাবে তিনি এমন ভাব করতেন যেন এতে তাঁর কিছু যায় আসে না। কিন্তু ভেতরে ভেতরে খারাপ লাগাটা ছিলই। অবশেষে নিজেকে পরিবর্তন করতে বদলালেন খাদ্যাভ্যাস। ‘এনিটাইম ফিটনেস’ নামক এক জিমেও ভর্তি হলেন। জিমে ভর্তি হওয়ার আগেই অবশ্য ডায়েট বদলে ৩০ পাউন্ড (১৩ কেজি) ঝরিয়ে ফেলেছিলেন।

ইথান এখন যেমন।

ইথান বলছেন, ‘আমি একদিন সোজা জিমে হাজির হলাম। ওঁরা বললেন, আমার পক্ষে ওজন কমানো সম্ভব। এ যেন স্বর্গে তৈরি যোগাযোগ। আমার সাফল্যের পেছনে ওঁদের বিরাট বড় অবদান। জিমের সবাই আমায় স্বাগত জানিয়েছেন, উৎসাহ দিয়েছেন, আমার সঙ্গে পরিবারের সদস্যের মতো ব্যবহার করেছেন।’ এইভাবে ১৮ মাসে প্রায় অর্ধেক ওজন কমিয়ে ফেলেন ইথান। যাঁরা ফিটনেস ইস্যুতে সমস্যায় ভুগছেন, তাঁদের প্রেরণা জোগাতে একটি সংস্থাও গঠন করেছেন তিনি। এছাড়া শিশুদের সাহায্যার্থে ম্যারাথনে দৌড়বেন বলেও জানা গেছে।