করোনার থার্ড ওয়েভ এর আগে হঠাৎই জুড়ে বসেছে জিকা ভাইরাস। এ ক্ষেত্রে মশার থেকে সংক্রমিত হয় মানুষ। কেরলে প্রথমবার এই ভাইরাসের হদিশ মিলেছে। ১৩ জনের শরীর থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে নমুনা। যা ভাইরাসের উপস্থিতি নিশ্চিত করতে ইতিমধ্যে পাঠানো হয়েছে পুনের National institute of virology- তে।

তিরুবন্তপুরম-এর এক গর্ভবতী মহিলার শরীর থেকে পাওয়া গেছে এই জিকা ভাইরাস। একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন তিনি। ২৮ শে জুন গায়ে ধুম জ্বর ও মাথাব্যথা, গায়ে লাল দাগ নিয়ে ভর্তি হন হাসপাতালে।

প্রাথমিক পরীক্ষা নিরীক্ষা করে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, ওই মহিলা জিকা ভাইরাসে আক্রান্ত। বর্তমানে ওই মহিলার শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল এবং ৭ জুলাই সুস্থ সন্তানের জন্ম দিয়েছেন। জানা গিয়েছে, দেশের বাইরে অন্য কোথাও বেড়াতে যাননি ওই মহিলা। সপ্তাহ খানেক আগে তার মায়ের শরীরেও একই উপসর্গ দেখা দেয়।

ইতিমধ্যে সর্তকতা জারি করা হয়েছে ওই জেলায়। এলাকার Aedes mosquito থেকে নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা-নিরীক্ষার কাজ শুরু হয়েছে। করা হচ্ছে পিসিআর টেস্ট।

জিকা ভাইরাস কি? 

জিকা মশার দ্বারা ছড়িয়ে পড়া একটি ভাইরাল সংক্রমণ। এডিস মশা থেকে ছড়িয়ে পরে এই ভাইরাস। অতিরিক্তভাবে, যৌন সম্পর্কের সময় ছড়িয়ে পড়ে এই ভাইরাস। উগান্ডায় বানরদের মধ্যে প্রথম চিহ্নিত হয়। পাঁচ বছর পরে জিকা মানুষের মধ্যে সনাক্ত করা হয়।  ১৯৬০ এর দশক থেকে বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়ে। ২০০৭ সালে মারাত্মক আকার নেয়। ২০১৫ সালে, ব্রাজিলে  বিরাটাকারে প্রকোপ ফেলে। গর্ভবতীরা এই ভাইরাসে আক্রান্ত হলে সন্তান অনুন্নত মস্তিষ্ক নিয়ে জন্মগ্রহণ করতে পারে। মূলত গর্ভবতী মহিলাদের জন্য মারাত্মক আকার নিয়ে ফেলে এই জিকা ভাইরাস।

২০১৮ সালে ভারতে জিকা ভাইরাসে আক্রান্ত হয় ৮০ জন।